পানি সঙ্কটে পড়তে যাচ্ছে বিশ্বের অর্ধেক মানুষ

আগামী ২০৫০ সালের মধ্যে বিশ্বের অর্ধেক লোকই প্রবল পানির অভাবের শিকার হবেন। ইন্টারন্যাশনাল ফুড পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউট (আইএফপিআরআই) থেকে এই আশঙ্কা ব্যক্ত করা হয়েছে। বলা হয়েছে, দিন দিনই পনি সঙ্কটাবস্থার অবনতি ঘটছে। এতে তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে খাদ্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা। যার ফলশ্রুতিতে প্রতিদিনই অভুক্ত থেকে রাত যাপন করতে হয় বিশ্বের ১০ কোটি মানুষকে। প্রতি আট সেকেন্ড অপুষ্টিতে ভুগে মারা যাচ্ছে একজন শিশু। কষ্টকল্পিত হলেও এটাই বাস্তবতা।
ডাবলিনে অনুষ্ঠিত ‘ফিডিং ইন দ্য ওয়ার্ল্ড ২০৫০’ সম্মেলনে উপস্থাপন করা হয় এই তথ্য।
pa
আর এই অবস্থা ঠেকাতে সম্মিলিতভাবে খাদ্য নিরাপত্তা বলয় গড়ে তোলার ওপর জোর দাবি জানান সম্মেলনে উপস্থিত আলোচকরা। এসময় ইন্টারন্যাশনাল ফুড পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (আইএফপিআরআই) এর মার্ক রোসেগ্রান্ট ও সিওয়া মাসাঙ্গি জানান, জলবায়ুর বিরূপতা আর পানি সঙ্কটে ঝুঁকির মুখে পড়েছে বিশ্বখাদ্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

পানি সঙ্কটের মুখোমুখি হচ্ছেন বিশ্বের এক তৃতীয়াংশ মানুষ। একই কারণে বিনষ্ট হচ্ছে মোট উৎপাদন ক্ষমতার ৪০ ভাগ শস্য। এ অবস্থার উন্নয়নে কিছু করা না গেলে কেবল পানি সঙ্কটের মুখে নাকাল হতে হবে বিশ্বের শতকরা ৫২ জন। লাগামহীনভাবে বাড়বে খাদ্য শস্যের দাম। বিশেষ করে ক্রমবর্ধমান হারে কেবল ভুট্টার দামই বাড়বে আরও ৫০ শতাংশ। এ থেকে বেরিয়ে আসতে হলে প্রতিটি দেশের সরকারকেই কৃষি গবেষণা ও উন্নয়নে আরো নিবেদিত হতে হবে। বিশেষায়িত ও সুনির্দিষ্ট লক্ষ্য নির্ধারণ করে পানির উৎপাদন বাড়াতে হবে। পানির ব্যবহারে আরো যত্নবান হবার প্রকল্প হাতে নিতে হবে। পানি উত্তোলন পদ্ধতি প্রযুক্তির উন্নয়ন ঘটাতে হবে।

http://www.natunbarta.com/environment

Check Also

এসেছে বাংলার ওয়াইল্ড মেন্টর

এই অ্যাপটির প্রধান উদ্দেশ্য, বিভিন্ন প্রাণির সামগ্রিক বিবৃতি উপস্থাপন। বৈজ্ঞানিক নাম থেকে শুরু করে, কোনো একটি নির্দিষ্ট প্রাণির বিভিন্ন বয়সের ছবি, স্বভাব, আচরণ, আকার-আকৃতি, রঙ, খাদ্য, ইত্যাদি সামগ্রিক ধারণা পাওয়া যাবে এখানে খুব সহজেই। এমনকি পৃথিবীর কোথায় কোথায় এর অস্তিত্ব আছে, সেটিও ম্যাপের মাধ্যমে তুলে ধরা হয়েছে এখানে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *