নুড়িতে পানির সুস্পষ্ট প্রমাণ

নাজমুল হক ইমন
দীর্ঘ গবেষণার পর বিজ্ঞানীরা ঠিকই আবিষ্কার করলেন মঙ্গল গ্রহের অনেক জায়গায় পানি প্রবাহিত হওয়ার ছাপ। বিজ্ঞানীদের এবার দাবি, মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসার অনুসন্ধানী মহাকাশযান কিউরিওসিটির পাঠানো ছবি ও তথ্যের মাধ্যমে নিশ্চিত হওয়া গেছে যে প্রবাহিত পানির কারণে মাটি ক্ষয়ে গিয়ে মঙ্গলগ্রহে খাদ তৈরি হয়েছে। খাদে স্তূপাকারে জমে থাকা গোলাকার নুড়িতে পানি বয়ে যাওয়ার সুস্পষ্ট প্রমাণও মিলেছে। এছাড়া আরো বেশকিছু ব্যাপার নিয়ে মঙ্গলে গবেষণা চলছে। এবং তা খুব দ্রুত জানানো হবে বলে জানা গেছে। সম্প্রতি বিজ্ঞানবিষয়ক সাময়িকী সায়েন্সে এ ব্যাপারে একটি সচিত্র নিবন্ধ প্রকাশিত হয়েছে। এছাড়া আরো কয়েকটি বিজ্ঞান বিষয়ক সংবাদমাধ্যম এ নিয়ে আরো খবর প্রকাশিত করেছে।
বিজ্ঞানীদের তথ্যের বরাত দিয়ে গত শুক্রবার বিবিসি অনলাইনের প্রতিবেদনে বলা হয়, কিউরিওসিটির পাঠানো ছবি বিশ্লেষণ করে মঙ্গল গ্রহের ভূপৃষ্ঠে পানিপ্রবাহের প্রমাণ পাওয়া গেছে। গবেষকরা ওই লাল গ্রহের ১৫০ কিলোমিটার চওড়া গেইল ক্রেটার খাঁড়িতে পাওয়া গোলাকার নুড়ি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দাবি করেন, এ সব নুড়ির সঙ্গে পৃথিবীর নদ-নদীতে পাওয়া নুড়ির অনেক সাদৃশ্য রয়েছে। প্রবাহিত পানির কারণে নদীতে পড়া পাথরের টুকরোগুলো গোলাকার হয়ে কোথাও গিয়ে স্তূপাকারে জমা হয়। মঙ্গলের খাদগুলোতেও নুড়িগুলো একইভাবে জমা হয়েছে। মার্কিন মহাকাশ সংস্থা গত বছরের সেপ্টেম্বরে মঙ্গলের এ নুড়ি আবিষ্কার করে। এরপর থেকে বিজ্ঞানীরা তা নিয়ে গবেষণা করতে থাকেন। কিউরিওসিটির পাঠানো ছবি বিশ্লেষণ করে মঙ্গলের ভূপৃষ্ঠে পানিপ্রবাহের বিষয়টি এত দিন ধারণা করা হচ্ছিল। কিন্তু এখন আর তা ধারণার মধ্যে সীমাবদ্ধ নেই।
এ প্রসঙ্গে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্ল্যানেটারি সায়েন্স ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানী রেবেকা উইলিয়ামস বলেন, আমরা দশকের পর দশক ধরে অনুমান করছিলাম যে পানিপ্রবাহের ফলে মঙ্গলপৃষ্ঠে এসব খাদ তৈরি হয়েছে।

সূত্রঃ দৈনিক মানবকণ্ঠ ২/০৬/২০১৩

Check Also

বিশ্ব পানি দিবস-২০১৫; করার আছে অনেক কিছু!

আজ ২২ শে মার্চ, বিশ্ব পানি দিবস। পানির প্রয়োজনীয়তা ও চাহিদার কথা ভেবে উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে বাংলাদেশের করণীয় অনেক কাজ এখনো বাকি! আসুন একসাথে সোচ্চার হই...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *