পরিবেশ রক্ষায় সবুজ ইট

সিফাত তাহজিবা

ইট বলতেই আমাদের চোখের সামনে ভেসে উঠে গাড় লাল রং এর মোটামুটি আয়তাকার এক কঠিন বস্তু । বহুল প্রচলিত ‘Brick red’ শব্দটি মনে হয় অচিরেই হারিয়ে যাবে কেননা, উন্নত দেশগুলো ইতোমধ্যে পরিবেশ রক্ষায় সবুজ ইটের ব্যবহার করছে। আমরা অনেকেই হয়তো জানিনা সবুজ ইট কি? প্রশ্ন জাগবে এই ইট কিভাবে পরিবেশ রক্ষায় কাজ দিবে? সাধারণত,কাদামাটি এবং কয়লা মিশিয়ে ইট প্রস্তত করা হয়। বাংলাদেশে প্রায় ১৫,০০০ ইট ভাটা আছে।eco_friendly_bricks_fixdu প্রতি বছর লক্ষ লক্ষ টন বজ্য এসব কারখানা থেকে নির্গত হয় আর ছড়িয়ে পড়ে বায়ুমণ্ডলে। কারখানা থেকে বের হওয়া ছাইতে বিপদজনক পরিমানে সিলিকন ডাই অক্সাইড, ক্যালসিয়াম অক্সাইড, বোরন,পারদ, সিসা থাকে। তাছাড়া,সাধারণ লাল ইট প্রস্তুত করতে প্রচুর বিদ্যুৎ এবং তাপ, ২৪ লক্ষ টন কয়লা প্রয়োজন হয়। সবুজ ইট ( Green Brick)মূলত বানানো হয় কয়লা ভিত্তিক কারখানা থেকে বের হওয়া উপজাত আর ছাই থেকে।যেগুলো পরে আর বাতাসে মিশে দূষণ করতে পারেনা। এটিকে বলা হয় ‘Smokeless brick making technology’- সবুজ ইট বানানোতে যে মেশিন ব্যবহার করা হবে তাতে দূষণ ৬০% কমিয়ে আনা যাবে। প্রযুক্তিটিতে অনেক কম পরিমাণে কয়লা, জ্বালানি,কাদামাটি লাগে। বাংলাদেশে সবুজ ইটের ব্যবহার নেই বললেই চলে। এটি এ দেশে নতুন হলেও চীন এ প্রায় ১০ বছর ধরে ব্যবহার হছে। একদিকে এ দেশে বহুল আলোচিত-সমালোচিত সুন্দরবন এ প্রস্তাবিত কয়লাভিত্তিক বিদ্যুত কেন্দ্র স্থাপণ করা হচ্ছে যা এই এলাকার পরিবেশের জন্য খুব ই বিপদজনক, অন্যদিকে উন্নত দেশ গুলো দূষণ কমাতে ব্যবহার করছে উদ্ভাবনীয় শক্তি।

শিক্ষার্থী, মৃত্তিকা, পানি ও পরিবেশ বিভাগ

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

Check Also

ঘরে বসে শুনুন আমেরিকান জিওফিজিক্যাল ইউনিয়ন এর ২০১৫ সালের কনফারেন্স সরাসরি লেকচার

আমেরিকান জিওফিজিক্যাল ইউনিয়ন (AGU) এর ২০১৫ সালের Fall Meeting শুরু হয়েছে ডিসেম্বর মাসের ১৪ তারিখ থেকে ক্যালিফোর্নিয়া রাজ্যের সানফ্রানসিসকো শহরে, চলবে ১৮ই ডিসেম্বর পর্যন্ত। এখানে উল্লেখ্য যে এই বৈজ্ঞানিক সম্মেলনটি পৃথিবীর সবচেয়ে বড় পৃথিবী ও মহাকাশ বিষয়ক বিজ্ঞানের সম্মেলন হিসাবে বিবেচিত হয়ে থাকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *