মেক্সিকোতে প্রাগৈতিহাসিক ডায়নাসরের জীবাশ্ম !!

মেক্সিকোতে প্রাগৈতিহাসিক ডায়নাসরের জীবাশ্ম আবিষ্কৃত হয়েছে। মেক্সিকোর ন্যাশনাল ইন্সিটিউট ফর অ্যানথ্রপোলজি অ্যান্ড হিস্ট্রি (INAH) গত সোমবার এক আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে এ তথ্য প্রকাশ করেছে ।

জীবাশ্ম বিজ্ঞানীদের একটি দল উত্তর মেক্সিকোতে ৭২ মিলিয়ন বছর আগের একটি ডাইনাসরের জীবাশ্ম আবিষ্কার করেছেন। বিজ্ঞানীরা এই আবিষ্কারকে একটি মাইলফলক হিসেবে দেখছেন। da 2

INAH এর ডিরেক্টর ফ্রান্সেসকো এগুইলার জানান, মেক্সিকোতে এই প্রথমবারের মতো এই ধরনের একটি ডাইনাসরের লেজ পাওয়া গেল। লেজটির দৈর্ঘ্য প্রায় ৫ মিটার (১৬ ফুট) লম্বা। লেজটি পাওয়া গেছে দেশটির একটি ছোট শহর জেনারেল কেপেদা (Cepeda) থেকে একটু দূরে।

ডিরেক্টর ফ্রান্সেসকোর মতে, লেজটির দৈর্ঘ্য ডাইনাসরটির দেহের দৈর্ঘ্যের প্রায় অর্ধেক। এই আবিষ্কার ইতোমধ্যে বিজ্ঞানীদের মাঝে চাঞ্চল্য তৈরি করেছে।

বিজ্ঞানীরা প্রায় ২০ দিন চেষ্টার পর মরুভুমির বুকে পাললিক শিলার আবরণ সরিয়ে ডাইনাসরটির লেজ আবিষ্কার করতে সক্ষম হয়েছেন। তারা লেজটিতে প্রায় ৫০ টি ভারটিব্রা (Vertebrae) অক্ষত অবস্থায় খুঁজে পেয়েছেন।

da 3

    আবিষ্কৃত ডাইনাসরটি হাডরোসর ফ্যামিলির (hadrosaur family) অন্তর্ভুক্ত। এই আবিষ্কারের মাধ্যমে বিজ্ঞানীরা উক্ত ফ্যামিলি সম্পর্কে আরো গবেষণার সুযোগ পাবেন বলে মনে করেন ফ্রান্সেসকো। তিনি মনে করেন, ক্রিটাসিয়াস যুগের (Cretaceous period) যুগের অনেক নিদর্শন পাওয়া যাবে মধ্য-উত্তর মেক্সিকোতে।

আবিষ্কৃত ডাইনাসরটি সম্পর্কে INAH প্রথম অবহিত হয় ২০১২ সালের জুন মাসে। এরপর, নানা রকম পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে এই মাসের শুরুর দিকে খনন কাজ আরম্ভ করা হয়। ডাইনাসরটির অবশেষটি আরও পরীক্ষা- নিরীক্ষার জন্য জেনারেল কেপেদা (Cepeda) শহরে খুব শীঘ্রই পাঠানো হচ্ছে।

সূত্রঃ ইন্টারনেট

লেখাঃ মাহবুব রেজওয়ান

এনভাইরনমেনটমুভ ডেস্ক

Check Also

বাংলাদেশে বিলুপ্তপ্রায় চাইনিজ বনরুই; আন্তর্জাতিক সাময়িকীতে গবেষণাপত্র প্রকাশিত

পরিবেশ সচেতন পাঠক, পার্বত্য চট্টগ্রামে বনরুই এর বর্তমান পরিস্থিতি হতাশাজনক হলেও, গবেষকগণ লাউয়াছড়ার মাটিতে বিভিন্ন গর্তে উঁকি মেরে তুলনামূলক আশার আলো বাঁচিয়ে রাখতে পেরেছেন। লাউয়াছড়ায় চালানো বিভিন্ন গবেষণার ফল বলছে, এখানে এখনো তুলনামূলক বেশ সংখ্যক বনরুই নীরবে বসবাস করছে। এমনকি চা-বাগানের শ্রমিকরা জানিয়েছেন, মনোকালচার টি স্টেটে বনরুইদের সাক্ষাৎ প্রায়ই পাওয়া যায়। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, চমৎকার জীব-বৈচিত্র্যের ঠিকানা এই বাংলাদেশ থেকে বনরুই এর পরিমাণ দিন দিন কমে আসছে কেন ! বনরুই-এর উদাহরণ সামনে রেখে বাংলাদেশে বন্যপ্রাণিদের দেখভাল সঠিকভাবে হচ্ছে কি না, এই বিষয়ে একটু কি খটকা লাগছে না?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *