পরিযায়ি পাখি খয়রাপাখ পাপিয়া

জুনায়েদ তানভীর

খয়রাপাখ পাপিয়া বা খয়েরি-ডানা পাপিয়া  (Clamator coromandus)  (ইংরেজি  chestnut-winged cuckoo)। কুকুলিডি পরিবারের অন্তর্গত ক্লামাটর গনের একটি বড় পাখি। এরা এই প্রজাতির মধ্যে সবচেয়ে বড় পাখি। এরা বাংলাদেশের পরিযায়ি ও বিরলতম পাখি। এই পাখিকে দেশের ঢাকা, খুলনা ও সিলেট অঞ্চলে দেখতে পাওয়া যায়।  আই. ইউ. সি. এন. এই প্রজাতিটিকে Least Concern বা আশংকাহীন বলেই ঘোষণা করেছে। তবে বাংলাদেশে এই প্রজাতি সম্পর্কে তেমন কোন তথ্য পাওয়া যায় নি।

 11958862005_eeeef541e4এই প্রজাতি একটি পাখি আকারে প্রায় ৪৭ সে মি হয়ে থাকে। এরা দেখতে কালো। এই কালো এবং ঝুঁটিওয়ালা পাখির পাখনা আবার খয়েরি বর্ণের হয়ে থাকে। এই কারনে এই পাখিটির নাম খয়েরি-ডানা পাপিয়া বা খয়রাপাখ পাপিয়া। এদের ঝুঁটিটি চকচকে কালো। মাথা ও দেহের মাঝে  থাকা ঘাড় সাদা রঙের হয়। অপ্রাপ্তবয়স্ক পাখিদের ডানা ঈষৎ কালো বর্ণের হয়ে থাকে। এই প্রজাতি দেখতে খুবই সুন্দর। এরা শুধু দৈর্ঘ্যেই অনন্য নয়। রঙিন ডানা, খাড়া ঝুঁটি এবং লম্বা-চওড়া লেজও এদের সৌন্দর্য্য অনেকখানি বাড়িয়ে দিয়েছে। 

chestnutwingedcuck1amay12এই প্রজাতির প্রজনন ঋতু বর্ষাকাল। মেআগস্ট মাসের প্রজনন মৌসুমে বাংলাদেশে খয়েরি-ডানা পাপিয়ার দেখা মেলে। তার আগে-পরে এদেরকে খুব একটা দেখা যায় না। পাখিটি বাংলাদেশে প্রজনন-পরিযায়ি। এরা কিন্তু গোপনে অন্য পাখির বাসায় ডিম পাড়ে।

 খয়েরি-ডানা পাপিয়া  একাকী থাকতে ভালোবাসে। তবে মাঝে মাঝে দলবদ্ধ অবস্থায় দেখতে পাওয়া যায়। সচরাচর বনে বাস করে বলে সাধারনের নজরে খুব একটা পড়ে না। এদেরকে লোকালয়ে দেখা যায় না বললেই চলে। এরা পোকা ধরে খায়। পোকামাকড়ই মূলত এদের প্রধান খাদ্য।

Check Also

শ্যামগঞ্জে ২০৫ টি পাখি জব্দ

জব্দকৃত পাখিগুলোর মধ্যে রয়েছে , নিশি বক ৫, কানি বক ৬৫, গোবক ২৫, পানকৌড়ি ০৭, কালিম ০৪, কাদাখোঁচা ৪৫, পাতি সরালি ০৪, বালি হাস ০২, সোনাজিড়িয়া ২৮, পাতি বাটান ২০।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *