পর্বতারোহীদের জন্য নতুন প্লাটফর্ম; ভার্টিকাল ড্রিমার্স!

এনভায়রনমেন্টমুভ ডেস্ক

বাংলাদেশের পর্বতারোহণের ইতিহাস বেশিদিনের নয়। তবুও সীমিত পরিসরে, ব্যক্তি উদ্যোগে কিংবা প্রাপ্তির দিক থেকে দুর্লভ স্পন্সরের সাহায্য নিয়ে গুটি গুটি পায়ে পথচলা শুরু করে ক্লাইম্বিংয়ের মতো কঠিন একটি স্পোর্টস, যা আজকে এতদূর এগিয়ে এসেছে। দেশ থেকে সাম্প্রতিক বছরগুলোতে একরকম নিয়মিতই হিমালয়ের পর্বতগুলোতে অভিযান পরিচালিত হয়েছে। বিশ্বের দরবারে বাংলাদেশের লাল-সবুজ পতাকা বেশ কয়েকবার গর্বের সাথে তুলে ধরেছেন দেশের পর্বতারোহীরা। আবার সাফল্যের পাশাপাশি কিছু ব্যর্থতাও এসেছে, এসেছে অকাল মৃত্যু। তবে পর্বতারোহণের মতো ঝুঁকিপূর্ণ এবং বিপদজনক স্পোর্টসে সেটা খুবই স্বাভাবিক।

10884095_830811216962065_1801758020_o

কিন্তু পর্বতারোহণ বা মাউন্টেনিয়ারিংয়ের পুরো বলয়টিই ঢাকাকেন্দ্রিক হওয়ায় দেশের অন্যান্য জায়গায় বিশেষ করে চট্টগ্রামে এই ব্যাপারে তেমন কোন কার্যক্রম দেখা যায়নি। এটি খুবই দুর্ভাগ্যজনক কারণ চট্টগ্রামের পার্বত্য এলাকাগুলোই এ দেশের অ্যাডভেঞ্চার-প্রিয় মানুষগুলোর বিচরণক্ষেত্র। অথচ সেখানেই পর্বতারোহণ নিয়ে তেমন কোন উৎসাহ বা উদ্দীপনা নেই! বিচ্ছিন্নভাবে বিভিন্ন সময় অনেকে এটা নিয়ে কাজ করলেও পরবর্তীতে ব্যক্তিগত ব্যস্ততা, ধারাবাহিকতার অভাব কিংবা পৃষ্ঠপোষকতার ঘাটতিসহ আরও বিভিন্ন কারণেই হয়তো পর্বতারোহণের সম্ভাবনাময় কলিটি কখনই ফুল হয়ে ফুঁটতে পারেনি। কিন্তু এদিকে দেশে পর্বতারোহণের ধারা থেমে থাকেনি, বরঞ্চ বেশ খানিকটা এগিয়েই গেছে। এমন পরিস্থিতিতে চট্টগ্রামের ক’জন অ্যাডভেঞ্চার-প্রিয় তরুণ পর্বতারোহণের জন্য চট্টগ্রামে একটি প্লাটফর্মের তীব্র প্রয়োজনীয়তা অনুভব করেন। এবং সেই সূত্র ধরেই এ বছরের ৩০ মে তাঁরা উদ্বোধন করেন,  “ভার্টিকাল ড্রিমার্স” নামের একটি ক্লাবের; যেটি ঘটনাচক্রে চট্টগ্রামের প্রথম মাউন্টেনিয়ারিং ক্লাব। সেই থেকে এই ক্লাবটি চট্টগ্রামের পর্বতপ্রেমী তরুণদের মিলনমেলায় পরিণত হয়েছে।

ClimbingWorkshopdebu

একদম শুরু থেকেই ক্লাবের মূল উদ্দেশ্য ছিল পর্বতারোহণ বা মাউন্টেনিয়ারিংকে অ্যাডভেঞ্চার-প্রিয় তরুণ সমাজের কাছে সহজলভ্য করে তুলে ধরা, বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালনার মাধ্যমে স্পোর্টসটিকে তরুণদের কাছে জনপ্রিয় করে তোলা এবং প্রতি বছর হিমালায়ের পর্বতগুলোয় অভিযান পরিচালনা করা। আর সেই লক্ষ্যকে পূর্ণতা দিতেই গত অক্টোবর মাসে ভার্টিকাল ড্রিমার্স-এর দুটি দল হিমালয়ের দুটি ভিন্ন ভিন্ন পর্বতাঞ্চলে দু’টি পর্বত অভিযান পরিচালনা করেন। সেই পর্বত অভিযান দু’টি চট্টগ্রামের অবহেলিত পর্বতারোহণের পরিমণ্ডলে যেন এক পশলা সুবাতাস বয়ে আনে।

ক্লাবের কার্যক্রমগুলোকে সবার মাঝে আরো ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে ভার্টিকাল ড্রিমার্স ১৬ই ডিসেম্বর মহান বিজয় দিবসে উন্মুক্ত করে তাদের নিজস্ব ওয়েবসাইট www.verticaldreamers.com

বাংলাদেশের পতাকা নতুন নতুন উচ্চতায় নিয়ে যাওয়াই ভার্টিকাল ড্রিমার্সের প্রধান লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য।

শুরু হোক নতুন পদযাত্রা, জয় হোক অ্যাডভেঞ্চারের।

Check Also

জলবায়ু পরিবর্তনঃ যে ৯ টি কারণে ২০১৮ তে আমরা আশাবাদি হতেই পারি!

সাদিয়া লেনা আলফি গেল বছরটি ছিলো জলবায়ুর জন্য বেশ আশঙ্কাজনক। বিষয়টি মূলত ঘটেছে বর্তমান বিশ্বের …

One comment

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *