নিরাপদ আশ্রয়ে গন্ধগোকুল

মনজুর কাদের চৌধুরী

14937273_655950584586581_6260578868606912277_n

সিলেটের দক্ষিণ সুরমা থেকে উদ্ধারকৃত আহত এশিয় পাম গন্ধগোকুলকে ছেড়ে দেওয়া হল সিলেট টিলাগড় ইকো পার্কে ।
খাবার সংকটে সিলেটের দক্ষিণ সুরমার কুচাই এলাকায় একটি কবুতর খামারে ডুকে পড়েছিল গন্ধগোকুলটি । খামারের মালিকের আঘা্তে গভীর ক্ষত সৃষ্টি হয় এর শরীরে। এরপর  জুবায়ের আহমদের সহযোগিতায় রক্ষা পায় গন্ধগোকুলটি । রবিবার সকালে গন্ধগোকুলটি উদ্ধার করে সিলেট কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণি অধিকার ও জীববৈচিত্র‍্য সংরক্ষণ বিষয়ক সংগঠন প্রাধিকার। প্রাধিকারের সভাপতি মনজুর কাদের চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মজিদ উজ্জ্বল ও সাংগঠনিক সম্পাদক (গৃহপালিত ও পোষা প্রাণি) সাইফুল ইসলাম প্রাণিটিকে নিয়ে আসেন প্রফেসর মুসলেহ উদ্দিন আহমদ চৌধুরী ভেটেরিনারি টিচিং হাসপাতালে। এরপর ভেটেরিনারি এন্ড অ্যানিমেল সায়েন্স অনুষদের মেডিসিন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ড. মাহফুজুর রহমান এর তত্ত্বাবধানে চলে চিকিৎসা।
13438970_655955357919437_835840031444215245_n
প্রাধিকারের সভাপতি মনজুর কাদের চৌধুরী জানান , গন্ধগোকুল বর্তমানে অরক্ষিত প্রাণী হিসেবে বিবেচিত। পুরোনো গাছ, বন-জঙ্গল কমে যাওয়ায় দিন দিন এদের সংখ্যা কমে যাচ্ছে। আন্তর্জাতিক প্রকৃতি ও প্রাকৃতিক সম্পদ সংরক্ষণ সংঘের (আইইউসিএন) বিবেচনায় পৃথিবীর বিপন্ন প্রাণীর তালিকায় উঠে এসেছে এই প্রাণী। উদ্ধারকৃত গন্ধগোকুলটি আটকের সময় একটু আহত হয় আমরা  চিকিৎসা শেষে আজ দুপুরে সিলেট টিলাগড় ইকো পার্কে অবমুক্ত করে দেই প্রাণীটিকে 
14993557_655950214586618_7927685786115059279_n
টিলাগড় ইকো পার্কে এসময় উপস্থিত ছিলেন প্রাধিকার সভাপতি মনজুর কাদের চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মজিদ উজ্জ্বল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জুনেদ আহমদ, ভূমি সন্তান বাংলাদেশের সমন্বয়ক আশরাফুল কবির, পরিবেশকর্মী মামুন হোসেন, নাসির হোসেন, শহিদুল হক।

Check Also

মৌসুমি ফলে বিষ দিয়ে নীরব গণহত্যা বন্ধের দাবি

মৌসুমী ফলের কুড়িঁ থেকে শুরু করে পাকা এবং বাজারজাত করন পর্যন্ত অত্যাধিক ও নির্বিচারে কীটনাশক ব্যবহারের ফলে জনগণ গুরুতর স্বাস্থ সমস্যার উচ্চ ঝুকিতে রয়েছে। ফলে চিকিৎসা ব্যবস্থার উপর চাপ বাড়ছে। এতে জনস্বাস্থ্যের ওপর মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে। রাসায়নিক বিষ মেশানো ফল খেয়ে মানুষ পেটের পীড়া, শ্বাসকষ্ট, অ্যাজমা, গ্যাস্ট্রিক, লিভার নষ্ট হয়ে যাওয়া, ক্যানসারসহ দীঘর্ মেয়াদি নানা রকম রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *