Tag Archives: বাংলাদেশের পাখি

পাতি বটেরা

পাতি বটেরা (Coturnix coturnix) ( ইংরেজি Common Quail)  ফ্যাজিয়ানিডি (Phasianidae) গোত্র বা পরিবারের অন্তর্গত কোটারনিক্স (Coturnix) গণের এক প্রজাতির কোয়েল ।এদের সচারচ ইউরোপের বিভিন্ন দেশে পাওয়া যায় । এরা বাংলাদেশের পরিযায়ী পাখি। আই. ইউ. সি. এন. এই প্রজাতিটিকে Least Concern বা আশংকাহীন বলে ঘোষণা করেছে। পাতি বটেরা ছোট গোলাকার পাখি।এরা খয়েরি রঙের হয় এবং চোখে সাদা ডোরাকাটা দাগ আছে।পুরুষ প্রজাতিতে সাদা রঙের চিবুক দেখতে পাওয়া যায়।পরিযায়ী স‍্বভাবের জন্য এদের বড় ডানা আছে।এরা …

Read More »

বৃষ্টি বটেরা

 বৃষ্টি বটেরা (Coturnix coromandelica) (ইংরেজি: Rain Quail) বা  চিনা বটেরা ফ্যাজিয়ানিডি (Phasianidae) গোত্র বা পরিবারের অন্তর্গত কোটারনিক্স (Coturnix) গণের এক প্রজাতির বুনো কোয়েল। এরা দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার স্থানীয় পাখি। আই. ইউ. সি. এন. এই প্রজাতিটিকে Least Concern বা আশংকাহীন বলে ঘোষণা করেছে। চিনা বটেরার আকৃতি প্রকৃতি প্রায় সাধারণ গৃহপালিত কোয়েলের মতই। এদের পালক মেটে রঙের। মাথা গাঢ় বর্ণের তাতে অনেকগুলো সাদা দাগ। সাদা মোটা ভ্রু ঘাড়ে গিয়ে ঠেকেছে আর চোখ-ডোরা ঠোঁটে গিয়ে ঠেকেছে। পিঠ আর ডানা সাদা …

Read More »

রাজ বটেরা

রাজ বটেরা (বৈজ্ঞানিক নাম: Coturnix chinensis) (ইংরেজি: King Quail), বা নীলাভ-বুক বটেরা Phasianidae (ফ্যাসিয়ানিডি) গোত্র বা পরিবারের অন্তর্গত Coturnix (কোটার্নিক্স) গণের এক প্রজাতির রঙচঙে কোয়েল। রাজ বটেরার বৈজ্ঞানিক নামের অর্থ চিনা বটেরা । সেকারণে আই. ইউ. সি. এন. এই প্রজাতিটিকে Least Concern বান্যূনতম বিপদগ্রস্ত বলে ঘোষণা করেছে। রাজ বটেরা দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার স্থানীয় পাখি। বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে এ প্রজাতিটি সংরক্ষিত।নীল বটেরার (C. adansonii) সাথে প্রজাতিটি একটি মহাপ্রজাতি গঠন করেছে। পূর্বে এদের Exalfactoria (এক্সালোফ্যাক্টোরিয়া) গণের অন্তর্ভুক্ত বলে মনে করা হত, এখনও কেউ কেউ প্রজাতিটিকে এই গণের অন্তর্ভুক্ত …

Read More »

মেটে তিতির

মেটে তিতির (Francolinus pondicerianus) (ইংরেজি: Grey Francolin) বা ধূসর তিতির Phasianidae (ফ্যাজিয়ানিডি) গোত্র বা পরিবারের অন্তর্গত Francolinus(ফ্র্যাঙ্কোলিনাস) গণের এক প্রজাতির বুনো তিতির। মেটে তিতিরের বৈজ্ঞানিক নামের অর্থ পুদুচেরির খুদে মুরগী । আই. ইউ. সি. এন. এই প্রজাতিটিকে Least Concern বান্যুনতম বিপদযুক্ত বলে ঘোষণা করেছে। বাংলাদেশে এরা প্রাক্তন আবাসিক পাখি। বর্তমানে কোন নমুনা দেখার তথ্য জানা না থাকলেও বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে এ প্রজাতিটি সংরক্ষিত। এককালে ঢাকার তৃণভূমিতে দেখা যেত, এখন নেই। বাংলাদেশের একমাত্র নমুনা ১৯শতকে পশ্চিমাঞ্চলের শুকনো এলাকা থেকে সংগ্রহ করা হয়েছিল।মেটে তিতিরের …

Read More »

জলার তিতির

জলার তিতির বা বাদা তিতির (Francolinus gularis) (ইংরেজি: Swamp Francolin) ফ্যাজিয়ানিডি (Phasianidae) গোত্র বা পরিবারের অন্তর্গত ফ্র্যাঙ্কোলিনাস (Francolinus) গণের এক প্রজাতির বড় তিতির। এরা দক্ষিণ এশিয়ার ভারত ও নেপালের স্থানীয় পাখি। ঐতিহাসিকভাবে বাংলাদেশেও এদের অবস্থান ছিল এবং বর্তমানে এরা এদেশে আছে কিনা সেবিষয়ে সুনির্দিষ্ট কোন তথ্যপ্রমাণ নেই।গত কয়েক দশক ধরে এদের সংখ্যা আশংকাজনক হারে কমে যাচ্ছে। আই. ইউ. সি. এন. এই প্রজাতিটিকে Vulnerable বা ঝুঁকিপূর্ণ বলে ঘোষণা করেছে। সারা বিশ্বে আনুমানিক ১০০০০ থেকে ১৯৯৯৯টি জলার তিতির রয়েছে। বাংলাদেশ, ভারত ও নেপাল জলার তিতিরের …

Read More »

কালো তিতির

কালো তিতির বা কালা তিতির এর বৈজ্ঞানিক নাম Francolinus francolinus এবং এর ইংরেজি নাম Black Francolinযা ফ্যাজিয়ানিডি (Phasianidae) গোত্র বা পরিবারের অন্তর্গত ফ্র্যাঙ্কোলিনাস(Francolinus) গণের এক প্রজাতির বুনো তিতির। কালো তিতিরের বৈজ্ঞানিক নামের অর্থ ছোট মুরগী (ইতালিয়ান francolino= ক্ষুদে মুরগী)। আই. ইউ. সি. এন. এই প্রজাতিটিকে আশংকাহীন বলে ঘোষণা করেছে। বাংলাদেশে এরা মহাবিপন্ন (Critically endangered) বলে বিবেচিত। বাংলাদেশের বন্যপ্রাণী আইনে এ প্রজাতিটি সংরক্ষিত।  বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন  দেশ এবং মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশ  কালো তিতিরের প্রধান আবাসস্থল। বাংলাদেশের ঢাকা ও চট্টগ্রাম বিভাগের পাতাঝরা বন ও রাজশাহী বিভাগের উত্তর প্রান্তে গ্রামাঞ্চলে …

Read More »